ফরিদগঞ্জ ১১:৪৫ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৭ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
প্রেসিডেন্ট পুলিশ মেডেল -২০২৪ পদক পেলেন ফরিদগঞ্জের ‘শামছুন্নাহার’ বেসরকারি শিক্ষক কর্মচারিদের পূর্নাঙ্গ উৎসব বোনাসের দাবীতে স্মারক লিপি প্রদান ভাষা দিবসে প্রেরণা সামাজিক সংঘের সচেতনতামূলক সাইকেল র‍্যালি  র‍্যালি ও কেক কাটার মধ্য দিয়ে ফরিদগঞ্জে বিপি দিবস পালিত বর্ণিল আয়োজনে ‘ফরিদগঞ্জ বর্ণমালা কিন্ডারগার্টেন’র পুরস্কার বিতরণ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ফরিদগঞ্জে নিসচা’র ছাগল বিতরণ ফরিদগঞ্জ প্রেসক্লাবের বার্ষিক ভ্রমণ  ফরিদগঞ্জে চাঁদাবাজির মামলায় ইউপি চেয়ারম্যান আটক ফরিদগঞ্জে স্বপ্ন ছায়া সামাজিক সংগঠনের ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান ফরিদগঞ্জে দুই হাসপাতালে সিলগালা ও জরিমানা

লিভারের রোগাক্রান্ত ওসমানের বেঁচে থাকার আকুতি

শামীম হাসান
  • আপডেট সময় : ১১:৩৭:০১ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০২৩ ৩০৮ বার পড়া হয়েছে
যে দুটি চোঁখে স্বপ্ন দেখার কথা নিজের উজ্জ্বল  ভবিষ্যতের, অশ্রুঝরা সেই চোঁখ দুটিতে যেন এখন শুধুই একটু সুস্থভাবে বেঁচে থাকার নির্মূল আকুতি। ২০১৯ চাঁদপুর সরকারি কলেজে রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের মাস্টার্স পাশ করা ওসমান গাজীর।
ফরিদগঞ্জ উপজেলার ৮ নং পাইকপাড়া দক্ষিণ ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ডের সাহাপুর দেওয়ানজি বাড়ির বাসিন্ধা শহিদুল্লাহ গাজীর ছোট ছেলে ওসমান গাজী ২০০৮ থেকে ভুগছেন লিভার জনিত সমস্যায়। খাবার খেলেই পেটপুলে যাওয়া হাত ও পা ফুলে যাওয়ায় সমস্যা থেকে পরিত্রান পেতে স্থানীয় ডাক্তারদের পরামর্শে খেয়েছেন বহু ঔষধ, তাতে স্বাস্থ্যের উন্নতি তো দূরের কথা ক্রমাগত শরীরের অবস্থা অবনতির দিকে। খাবার খেলেই এমন অবস্থা সৃষ্টি হওয়ায় একটুখানি সস্তি পেতে এখন প্রায় দিনগুলো অনাহারেই কাটিয়ে দেয় ওসমান। ক্রমাগত নিজের স্বাস্থ্যের অবনতি দেখে স্থানীয় বাজারের চিকিৎসকদের পরামর্শে ঢাকার বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে গেলে প্রয়োজনীয় কিছু পরিক্ষা নিরীক্ষা করার পর ডাক্তার জানান অপারেশনের কথা। যা করতে প্রয়োজন লক্ষাধিক টাকা।
নিজের পড়াশোনাকালীন সময়ে পড়াশোনার পাশাপাশি একটু ফুড প্রোডাক্ট কোম্পানিতে চাকরি করা ও টিউশন করে উপার্জনের পথ খোলা থাকলে অসুস্থতায় পড়ে হারিয়েছেন সেই কোম্পানির চাকরিটিও। বৃদ্ধ বাবা-মাসহ ৭ সদস্যের পরিবারের খাবারের  চাহিদা যোগান দিতে অসুস্থ শরীর নিয়েই ফের অন্য একটি ফুড প্রোডাক্ট কোম্পানিতে যোগ দিয়েছেন। যেখানে পরিবারের সদস্যদের দু-মুঠি ভাত ও নিজের ঔষধ খরচ চালাতেই হিমশিম খাচ্ছে ওসমান সেখানে লক্ষাধিক টাকায় নিজের অপরেশন করা নেহাত কল্পনা মাত্র।
লিভারের রোগাক্রান্ত ওসমান গাজীর মা রাশিদা বেগমের সাথে কথা হলে তিনি জানান, বৃদ্ধ বয়সী স্বামীর উপার্জন ক্ষমতা না থাকায় ছেলের উপার্জনের উপর নির্ভর করেই চলতো সংসার। ছেলে অসুস্থ হওয়ার পর সব এলোমেলো হয়ে গেছে। ছেলে সংসারের খরচ চালাবে না নিজের চিকিৎসা চালাবে, সবমিলিয়ে অসহায় অবস্থায় আছে আমার পরিবার। ঢাকায় হাসপাতালের ডাক্তার বলেছে অপারেশনের কথা। ঘর-ভিটি ছাড়া আর কোন সম্পত্তিও নেই যে, তা বিক্রি করে ছেলের অপারেশন করাবো। এমন অবস্থায় সমাজের বিত্তবানরা এগিয়ে আসলে আমরা ছেলেটার চিকিৎসা করা যাবে।
লিভারের রোগাক্রান্ত ওসমান গাজীকে চিকিৎসা সহায়তা করতে যোগাযোগ করতে কিংবা নগদ অর্থ সহায়তা করতে (বিকাশ, নগদ, ডাচবাংলা : 01914894799)

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য

লিভারের রোগাক্রান্ত ওসমানের বেঁচে থাকার আকুতি

আপডেট সময় : ১১:৩৭:০১ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০২৩
যে দুটি চোঁখে স্বপ্ন দেখার কথা নিজের উজ্জ্বল  ভবিষ্যতের, অশ্রুঝরা সেই চোঁখ দুটিতে যেন এখন শুধুই একটু সুস্থভাবে বেঁচে থাকার নির্মূল আকুতি। ২০১৯ চাঁদপুর সরকারি কলেজে রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের মাস্টার্স পাশ করা ওসমান গাজীর।
ফরিদগঞ্জ উপজেলার ৮ নং পাইকপাড়া দক্ষিণ ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ডের সাহাপুর দেওয়ানজি বাড়ির বাসিন্ধা শহিদুল্লাহ গাজীর ছোট ছেলে ওসমান গাজী ২০০৮ থেকে ভুগছেন লিভার জনিত সমস্যায়। খাবার খেলেই পেটপুলে যাওয়া হাত ও পা ফুলে যাওয়ায় সমস্যা থেকে পরিত্রান পেতে স্থানীয় ডাক্তারদের পরামর্শে খেয়েছেন বহু ঔষধ, তাতে স্বাস্থ্যের উন্নতি তো দূরের কথা ক্রমাগত শরীরের অবস্থা অবনতির দিকে। খাবার খেলেই এমন অবস্থা সৃষ্টি হওয়ায় একটুখানি সস্তি পেতে এখন প্রায় দিনগুলো অনাহারেই কাটিয়ে দেয় ওসমান। ক্রমাগত নিজের স্বাস্থ্যের অবনতি দেখে স্থানীয় বাজারের চিকিৎসকদের পরামর্শে ঢাকার বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে গেলে প্রয়োজনীয় কিছু পরিক্ষা নিরীক্ষা করার পর ডাক্তার জানান অপারেশনের কথা। যা করতে প্রয়োজন লক্ষাধিক টাকা।
নিজের পড়াশোনাকালীন সময়ে পড়াশোনার পাশাপাশি একটু ফুড প্রোডাক্ট কোম্পানিতে চাকরি করা ও টিউশন করে উপার্জনের পথ খোলা থাকলে অসুস্থতায় পড়ে হারিয়েছেন সেই কোম্পানির চাকরিটিও। বৃদ্ধ বাবা-মাসহ ৭ সদস্যের পরিবারের খাবারের  চাহিদা যোগান দিতে অসুস্থ শরীর নিয়েই ফের অন্য একটি ফুড প্রোডাক্ট কোম্পানিতে যোগ দিয়েছেন। যেখানে পরিবারের সদস্যদের দু-মুঠি ভাত ও নিজের ঔষধ খরচ চালাতেই হিমশিম খাচ্ছে ওসমান সেখানে লক্ষাধিক টাকায় নিজের অপরেশন করা নেহাত কল্পনা মাত্র।
লিভারের রোগাক্রান্ত ওসমান গাজীর মা রাশিদা বেগমের সাথে কথা হলে তিনি জানান, বৃদ্ধ বয়সী স্বামীর উপার্জন ক্ষমতা না থাকায় ছেলের উপার্জনের উপর নির্ভর করেই চলতো সংসার। ছেলে অসুস্থ হওয়ার পর সব এলোমেলো হয়ে গেছে। ছেলে সংসারের খরচ চালাবে না নিজের চিকিৎসা চালাবে, সবমিলিয়ে অসহায় অবস্থায় আছে আমার পরিবার। ঢাকায় হাসপাতালের ডাক্তার বলেছে অপারেশনের কথা। ঘর-ভিটি ছাড়া আর কোন সম্পত্তিও নেই যে, তা বিক্রি করে ছেলের অপারেশন করাবো। এমন অবস্থায় সমাজের বিত্তবানরা এগিয়ে আসলে আমরা ছেলেটার চিকিৎসা করা যাবে।
লিভারের রোগাক্রান্ত ওসমান গাজীকে চিকিৎসা সহায়তা করতে যোগাযোগ করতে কিংবা নগদ অর্থ সহায়তা করতে (বিকাশ, নগদ, ডাচবাংলা : 01914894799)